শারীরিক সুরক্ষার জন্য মুখের স্বাস্থ্যের যত্ন

0
6
মুখের স্বাস্থ্যের যত্ন। ছবি সংগৃহীত

অধ্যাপক ডা. মো. সামসুল আলম

চেয়ারম্যান, ডিপার্টমেন্ট অব কনজারভেটিভ, ডেন্টিস্ট্রি অ্যান্ড এন্ডোডেন্টিস্ট

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

দাঁত ও মাড়ির রোগের সঙ্গে হৃদরোগের সম্পর্ক রয়েছে। মুখগহ্বর যেহেতু শরীরেরই অংশ তাই শরীরের রোগের সঙ্গে যেসব রিস্ক ফ্যাক্টর বা ঝুঁকিপূর্ণ উপাদান জড়িত মুখের রোগেও একই রিস্ক ফ্যাক্টর জড়িত। বিশ্বের মোট জনসংখ্যার শতকরা ৯০ ভাগ জীবনের কোনো না কোনো সময় মুখের রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকেন। অনেকেই মনে করেন দাঁতের চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল, তাই তারা রোগ পুষে রাখেন।

উন্নত বিশ্বের সমমানের চিকিৎসা সত্ত্বেও এখানকার চিকিৎসা ব্যয় অনেক কম। সে জন্য ভিনদেশি রোগীরাও এখন বাংলাদেশে দাঁত ও মাড়ির রোগের চিকিৎসার জন্য আসেন। উন্নত বিশ্বের মতো দেশে ডেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের ব্যবস্থা থাকলে বছরে অন্তত দু’বার রোগীরা দাঁত ও মাড়ির রোগ শণাক্তকরণ ও চিকিৎসার জন্য ডেন্টাল সার্জনের কাছে আসার উৎসাহ পেতেন। মুখের রোগের চিকিৎসা না হলে শরীরের অপূরণীয় ক্ষতি হতে পারে।

এখন ডেন্টাল চিকিৎসায় অনেক সাবস্পেসালিটি তৈরি হয়েছে। এন্ডোডেন্টিস্টরা দাঁত সংরক্ষণ করেন, ওরাল অ্যান্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জনরা মুখের মধ্যকার বড় ধরনের সার্জারিসহ ক্যান্সারের চিকিৎসা করেন, প্রস্থডেন্টিস্টরা কৃত্রিম দাঁত সংযোজনের নানা কৌশল জানেন, অর্থোডেন্টিস্টরা এলোমেলো, ফাঁকা ও উঁচু-নিচু দাঁতকে সুন্দর ও সুসজ্জিত করেন, পেড্রোডেন্টিস্টরা শিশুর দাঁতের চিকিৎসা করে থাকেন।

মুখের পরিচর্যায় সঠিক নিয়ম জানতে হবে

অধ্যাপক ডা. আসাদ-উজ-জামান

উপাধ্যক্ষ, সাপ্পোরো ডেন্টাল কলেজ

জাপানের একটি বিশেষ স্লোগান হচ্ছে একজন ব্যক্তি তার ৮০ বছরের জীবনে অন্তত ২০টি দাঁত সংরক্ষণ করতে হবে। মাড়ির রোগ ও মাড়ির আশপাশে আলসার বা ঘা দেখা দিলে নিজে নিজে চিকিৎসা না করে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। দাঁত নড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ পেরিওডন্টাইটিস, তবে এটি ছাড়াও মাড়ির ক্যান্সার, রক্তনালির টিউমার হেমানজিওমা, সিস্ট হলেও দাঁত নড়ে যেতে পারে। তাই দাঁত পড়লে রোগীদের ডাক্তারের কাছে এসে দাঁত তুলে ফেলার অনুরোধ করা ঠিক নয়। এ রকম আরও অনেক বিষয়ে সচেতন করে তোলার উদ্দেশ্যেই বিশ্ব মুখগহ্বর স্বাস্থ্য দিবস পালিত হবে। মুখের সঠিক পরিচর্যার ব্যাপারেও সঠিক নিয়ম জানতে হবে, তাহলেই ডেন্টাল ক্যারিজ ও মাড়ির রোগসহ মুখের সিংহভাগ রোগ প্রতিরোধ করা যাবে। বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটি ও বিএফডিএস মুখগহ্বরের স্বাস্থ্য রক্ষায় যে উদ্যোগ নিয়েছে তা প্রশংসনীয়। এ দিবসে বলতে হবে মুখকে নিয়ে ভাবুন, মুখ আপনার সঠিক স্বাস্থ্যকে নিয়ে ভাববে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ডেন্টাল চিকিৎসার মান এখন অনেক উন্নত এবং সরকারি উদ্যোগে উপজেলা পর্যায়েও ডেন্টাল সেবা পৌঁছে গেছে। স্বল্প আয়ের মানুষরা এ চিকিৎসা পেতে এখন সরকারি ও বেসরকারি ডেন্টাল কলেজকে বেছে নিতে পারেন। তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত যেন মুখের যত্নে জনগণকে সচেতন করে তোলা যায় সে ব্যাপারে আমাদের ডেন্টিস্টরা এক হয়ে কাজ করবে- এই হোক আমাদের প্রতিজ্ঞা।

প্রাইমারি ওরাল হেলথ কেয়ারে গুরুত্ব দেয়া হোক

অধ্যাপক ডা. হুমায়ুন কবির বুলবুল

অধ্যক্ষ, ঢাকা ডেন্টাল কলেজ

মহাসচিব, বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটি

সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান ও ভ্রাতৃত্ববোধ- এ দুই পরিপ্রেক্ষিতেই ২০ মার্চ বিশ্ব মুখগহ্বর স্বাস্থ্য দিবস বা ওয়ার্ল্ড ওরাল ডে পালিত হবে। ব্যক্তিগত পর্যায় থেকে যেন মুখের স্বাস্থ্যের যত্নে আমরা সচেতন হই- এটি এ দিবসের থিম বা প্রতিপাদ্য। সরকারি পর্যায়ে প্রাইমারি ওরাল হেলথ কেয়ারের দিকে নজর দেয়ার সময় এসেছে। জুনিয়র লেভেলের পাঠ্যপুস্তকে ওরাল হাইজিন ইস্ট্রাকশন অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। ওরাল হেলথ প্রফেশনাল ও রাষ্ট্রীয় নীতি নির্ধারকদের সম্মিলিত প্রয়াসের মাধ্যমেই জনগণ মুখের যত্নে উদ্বুদ্ধ হবে। দিবসকে সামনে রেখে বাংলাদেশ ডেন্টাল সোসাইটি পাঁচ হাজারেরও অধিক ডেন্টাল চিকিৎসকের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠান আয়োজন করবে। বাংলাদেশ ফেডারেশন অব ডেন্টাল সাইন্স বা ইঋউঝ একটি টেবিলটকেরও আয়োজন করে। গতবছর এ দিবসে ঢাকা কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দিয়েছেন ওরাল্ড ডেন্টাল ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট ড. ক্যাথরিন কেল। লিভারের বিভিন্ন রোগের সঙ্গে পেরিওডন্টাল রোগের যোগসূত্র আছে। মুখের অভ্যন্তরের কোনো সার্জারির পর রক্তপাত বেশি হয় লিভারের রোগের কারণে। কোয়াগুলোপ্যাথির জন্য সামান্য আঘাতে মাড়ি থেকে অতিরিক্ত রক্তপাত হতে পারে। শিশুদের লিভার ডিজিজে দাঁত ও মাড়িতে সবুজ দাগ ও এনামেল হাইপোপ্লাসিয়া হতে পারে। এসব বিষয়ে জোরালোভাবে সচেতন করে তোলার উদ্দেশ্যেই দিবসটি পালন করা হবে।

খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনের কথা ভাবতে হবে

ডা. সাখাওয়াৎ হোসেন সায়ন্থ

সহকারী অধ্যাপক, ওরাল অ্যান্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

মুখের যত্নের প্রাথমিক বিষয় হচ্ছে নিয়মমাফিক দাঁত ও মুখগহ্বর পরিষ্কারের পাশাপাশি খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের বিষয়ে আমাদের গুরুত্ব দিতে হবে। চিনিযুক্ত যে কোনো খাবার দাঁতের শত্রু। ধূমপানের ক্ষতিকর দিকগুলো ব্যাপক প্রচারের মাধ্যমে জনগণ জানলেও জর্দার ভয়াবহতার কথা আমরা অনেকেই জানি না। তাই দাওয়াতে মূল খাবার গ্রহণের পর পান-জর্দা পরিবেশের রেওয়াজ আমাদের সমাজে এখনো রয়ে গেছে। ঠিক একইভাবে কোমল পানীয় গ্রহণও যে দাঁতের ব্যাপক ক্ষতি করে তা জানলেও মদ অ্যালকোহলও যে সমান ক্ষতিকর তা আমাদের হয়তো অজানা আছে। দেশের দশ হাজার অনুমোদিত ডেন্টাল চিকিৎসক গড়ে প্রতিদিন যদি পাঁচজন করে রোগীকে স্বাস্থ্য সচেতন করেন তাহলে প্রতিদিন পঞ্চাশ হাজার মানুষ দাঁত ও মুখের স্বাস্থ্যের তাৎপর্য বুঝতে পারবে। সরকারের নীতিনির্ধারক ও অন্যান্য সহযোগী সংগঠনগুলোকে এ ব্যাপারে ভূমিকা রাখতে হবে। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ডেন্টিস্ট্রি এখন বিশ্বমানের উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা তৈরি হয়েছে। নতুন উদ্ভাবিত প্রায় সব ধরনের যন্ত্রপাতি ও ম্যাটেরিয়ালস এখন আমাদের দেশে পাওয়া যাচ্ছে। চিকিৎসকরাও ব্যক্তিগত পর্যায়ে উদ্যোগ গ্রহণ করে দেশ ও বিদেশের উচ্চ চিকিৎসা পদ্ধতির সঙ্গে নিজেকে অভ্যস্ত করছে এবং রোগীদের স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করছে। বছরে যদি অন্তত দু’বার অনুমোদিত ডেন্টাল চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া যায় তাহলে অনেক রোগের জটিলতা সহজে এড়ানো যায়।

মুখের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সবাই এগিয়ে আসুক

ডা. মো. রফিকুল হোসেন রুমি

চেয়ারম্যান গভর্নিং বডি, পাইওনিয়ার ডেন্টাল কলেজ, আহ্বায়ক

বাংলাদেশ ফেডারেশন অব ডেন্টাল সাইন্স

এ আন্তর্জাতিক দিবস সামনে রেখে দেশে প্রথমবারের মতো বিশ হাজার স্বাস্থ্য প্রণোদনা পোস্টার প্রকাশের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যার মাধ্যমে সাধারণ জনগণ ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা যথেষ্ট সচেতন হবে বলে আশা করা যায়। মুখের স্বাস্থ্য রক্ষায় ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে সমপেশার মানুষসহ নীতিনির্ধারকরা, শিক্ষক, মসজিদের ইমামসহ যার যার অবস্থান থেকে এগিয়ে এলে দিবসটি সফল হবে। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসে এন্ডোক্রাইনোলজিস্ট ও ডেন্টাল চিকিৎসকের সমন্বয়ে আন্তর্জাতিকমানের সেমিনারের আয়োজন করা হয়। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে চিকিৎসকরা উন্নত বিশ্বের সমমানের চিকিৎসা ব্যবস্থা সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান আহরণ করে দেশের জনগণকে সেবা প্রদান করবে। এরই ধারাবাহিকতায় গত বছর পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকতে সহস্রাধিক ডেন্টাল চিকিৎসকরা আন্তর্জাতিক সেমিনারে অংশগ্রহণের মাধ্যমে আধুনিক চিকিৎসা সম্পর্কে অবগত হন। বিশ্ব মুখগহ্বর দিবস সামনে রেখে ডেন্টাল চিকিৎসকরা যতটা উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে স্বাস্থ্য সচেতনতার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছে তা বছরজুড়ে করা গেলে সফলতা অবশ্যই আসবে। পেরিওডন্টাল রোগ বা ডেন্টাল প্লাকে যে ব্যাকটেরিয়া থাকে তা সুস্থ হার্টে সংক্রমিত হয়ে হার্টের ভাল্ব ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

বিডিএস ডিগ্রিধারী নয়তো ডেন্টিস্ট নয়

ডা. মো. আসাফুজ্জোহা রাজ

সদস্য সচিব, বাংলাদেশ ফেডারেশন অব ডেন্টাল সাইন্স

বিশ্ব মুখগহ্বর স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য থেকে এটি স্পষ্ট যে, মুখ ও শরীরের সামগ্রিক স্বাস্থ্য রক্ষায় মুখের সঠিক পরিচর্যার কোনো বিকল্প নেই। শরীরের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ যেমন- হার্ট, ব্রেইন, লিভার, কিডনির অসুখের চিকিৎসা ও প্রতিরোধে জনগণ যতটা সচেষ্ট হচ্ছে, মুখের যতেœর ব্যাপারে ততটা সচেতনতা এখনও দেখা যায় না। চিকিৎসা গবেষকরা প্রমাণ করেছেন, দাঁত ও মাড়ির দীর্ঘমেয়াদি রোগ থেকে হার্ট, কিডনি, মস্তিষ্ক, রক্ত, অগ্নাশয়, লিভার, হাড়সহ ডায়াবেটিস ও গর্ভকালীন নানা জটিলতা হতে পারে। আমরা সেটা বুঝতে পারি না বলেই দাঁতের যতেœ অবহেলা করি। অর্থ সাশ্রয় হবে ভেবে দাঁত ও মাড়ির কষ্টে ওষুধের দোকান থেকে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই ওষুধ কিনে খাই বা অনুমোদনহীন চিকিৎসকের কাছে গিয়ে অপচিকিৎসার শিকার হই। আমাদের জানতে হবে বিডিএস ডিগ্রিধারী নয়তো ডেন্টিস্ট নয়। সুস্থ দাত আমাদের খাবারকে চর্বণের মাধ্যমে হজমের উপযোগী করে তোলে, মুখের আকৃতি ও সৌন্দর্য ধরে রেখে ব্যক্তিত্বকে আকর্ষণীয় করে। শুধু তাই নয় সুস্থ দাঁত মস্তিষ্ককে পর্যাপ্ত রক্ত সঞ্চালনের মাধ্যমে আমাদের প্রাণচঞ্চল রাখে, স্মৃতিশক্তি স্বাভাবিক রাখে ও কাজে উৎসাহ জোগায়। সুস্বাস্থ্যের জন্য সুস্থ হাসি ভূমিকা রাখে।

অনুলিখন : ডা. মো. মাহবুবুর রহমান

ছবি : ডা. তাসনিম আলম