দলে ফিরে পেলেন উষ্ণ অভ্যর্থনা, আপ্লুত ওয়ার্নার-স্মিথ

0
8

নিষেধাজ্ঞা শেষ হবে আগামী ২৮ মার্চ। জাতীয় দলে খেলতে পারবেন পরের দিন থেকে। এর আগেই ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভেন স্মিথকে দলে ফিরিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। তবে খেলোয়াড় হিসেবে নয়, দলের সঙ্গে বোঝাপড়া গড়ে তোলার জন্য এ উদ্যোগ নিয়েছে বোর্ড।

ইতিমধ্যে অজি দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন স্মিথ-ওয়ার্নার। পেয়েছেন উষ্ণ অভ্যর্থনা। সবাই তাদের সাদরে গ্রহণ করে নিয়েছেন। দুজনকেই স্বাগ্রহে স্বাগত জানিয়েছেন দলের বর্তমান ক্রিকেটাররাসহ সংশ্লিষ্টরা। তাদের কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পেয়ে ভীষণ আপ্লুত তারা।

ওয়ার্নার বলেন, এটা দুর্দান্ত ছিল। মনে হয়েছে, আমরা এতদিন দলের বাইরেই ছিলাম না। সবাই আমাদের ভালোভাবে গ্রহণ করেছে। কাছে পেয়ে জড়িয়ে ধরেছে। কারো মধ্যে কোনো দ্বিধা-সংকোচ ছিলো না। ভারতের বিপক্ষে সিরিজ জেতার কারণেই হয়তো এমনটা।

তিনি বলেন, আমরা ১২ মাস বাইরে ছিলাম। এসময়ে দলে বহু পরিবর্তন এসেছে। এখন দেখতে হবে বর্তমান দলে আমাদের ভূমিকা কী দাঁড়ায়, কীভাবে এগিয়ে নিতে পারি। এখন দলকে এগিয়ে নিতে কাজ করতে হবে।

নিষিদ্ধ থাকাকালে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসরে খেলতে এসেছিলেন স্মিথ-ওয়ার্নার। দুজনই কনুইয়ের ইনজুরি নিয়ে দেশে ফিরে যান। পরে ছুরি-কাঁচির নিচে যেতে হয় তাদের। সফল অস্ত্রোপচার শেষে এখন রয়েছেন পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায়।

সেই কারণে স্মিথ-ওয়ার্নারকে আসন্ন পাকিস্তান সিরিজের স্কোয়াডে রাখেনি অস্ট্রেলিয়া। এর বদলে খেলবেন আইপিএলে। সেখানে নিজেদের ফিটনেস ও ফর্ম যাচাই করে নেবেন। ২৩ মার্চ মাঠে গড়াবে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের দ্বাদশ আসর। মাল্টি মিলিয়ন ডলারের এ টুর্নামেন্টে খেলতে ভারত আসার আগে তিনদিনের জন্য দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন তারা।

আইপিএল শেষ করে বিশ্বকাপ প্রস্তুতির উদ্দেশে ফের মে মাসের মাঝামাঝিতে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন দুই তারকা। এর আগে ড্রেসিংরুমে এসে নিজের অনুভূতি জানাতে গিয়ে স্মিথ বলেন, দলের সঙ্গে যোগ দিতে পারাটা দারুণ অভিজ্ঞতা। আক্ষরিক অর্থেই তারা আমাদের স্বাগত জানিয়েছে। আমার মনে হচ্ছিল, আমরা কখনই তাদের ছেড়ে যাইনি। সবকিছুই ঠিক পথে আছে।

স্মিথ বলেন, সামনে অ্যাশেজ ও বিশ্বকাপের মতো দুটি গুরুত্বপূর্ণ আসর। এর আগে সবকিছু ঠিক রাখতে হবে। কীভাবে আরও ভালো করা যায় ভাবতে হবে। সামনের সময়টা বেশ রোমাঞ্চকর হতে যাচ্ছে। সবাই মনোসংযোগ ধরে রাখতে হবে। সব আগে এগুলো নিশ্চিত করতে হবে। এমনটা হলে আমরাই লাভবান হবো।

গেল বছর মার্চে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারিতে অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ ও সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকে ১ বছর এবং ক্যামেরন ব্যানক্রফটকে ৯ মাস নিষিদ্ধ করে অস্ট্রেলীয় বোর্ড। এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্যানক্রফটের নির্বাসনের মেয়াদ শেষ হয়েছে।